গুগলের ১৩ টি সফটওয়্যার যা আপনার জীবনকে সহজ করে তুলবে

প্রযুক্তি প্রতিনিয়ত আমাদের জীবনকে অনেক সহজ করে তুলছে। আমরা যেখানেই যাই, স্মার্টফোন দেখতে পাই, বিভিন্ন ধরনের যন্ত্র দেখতে পাই। বর্তমান যুগে সবকিছুর জন্যেই সফটওয়্যার আছে। সামাজিক যোগাযোগের জন্যে, বাজার করার জন্যে, ভালোবাসা খোঁজার জন্যেও সফটওয়্যার আছে, এমনকি ঘুমানোর প্যাটার্ন পরিবর্তন করার জন্যেও সফটওয়্যার আছে।

কিন্তু আমরা কি জানি, কোন সফটওয়্যারগুলো আমাদের ব্যবহার করা উচিত আর কোন সফটওয়্যারগুলো ব্যবহার করা উচিত নয়? চলুন, আজকে আমরা গুগলের ১৩ টি সফটওয়্যার সম্পর্কে জানার চেষ্টা করবো, যেগুলো ব্যবহার করে আমরা আমাদের জীবনকে আরো সহজ ও সুন্দর করে তুলতে পারবো।

অ্যালো  (Allo)

অ্যালো, গুগলের একটি চ্যাটিং সফটওয়্যার, যেটা শুধুমাত্র এন্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের জন্যেই তৈরী করা হয়েছে। বেশিরভাগ এন্ড্রয়েড ব্যবহারকারীরাই থার্ড পার্টি মেসেঞ্জার সফটওয়্যার ব্যবহার করে থাকেন, যদিও অ্যালো ঐসব মেসেঞ্জার থেকে কয়েক ধাপ এগিয়ে।

অ্যালোর একটি ফিচার হচ্ছে, আপনি সফটওয়্যারটির উপর যেকোনো স্থানে স্পর্শ করেই সরাসরি চ্যাট করতে পারবেন কিংবা কথা বলতে পারবেন, যা চ্যাটিংকে আরো বেশি দ্রুত করে তুলেছে। এই সফটওয়্যারেই আপনি যেকোনো ছবি এডিট করে বন্ধুদের কাছে সরাসরি পাঠাতে পারবেন।

গুগল টাইমার (Google Timer)

গুগলের আরেকটি অসাধারণ সফটওয়্যার হচ্ছে, গুগল টাইমার। গুগল টাইমারের মাধ্যমে আপনি গুগল ক্রোম ব্রাউজারের দ্বারা আপনার ফোনে কিংবা ল্যাপটপে এলার্ম এডিট করতে পারবেন। ইউটিউব থেকে যেকোনো গান এলার্ম রিংটোন হিসেবে সেট করতে পারবেন। আপনি চাইলে কোনো ধরনের ইন্টারনেট সংযোগ ছাড়াই, গুগল টাইমার ব্যবহার করতে পারবেন।

গুগল ট্রান্সলেট (Google Translate)

গুগল ট্রান্সলেট সফটওয়্যারটির মাধ্যমে আপনি যেকোনো জায়গা থেকে যেকোনো টেক্সট কিংবা ছবি যেকোনো ভাষায় অনুবাদ করতে পারবেন। মূলত সফটওয়্যারটি পর্যটকদের জন্যে অনেক বেশি উপকারী। শীঘ্রই এই সফটওয়্যারে যুক্ত হচ্ছে নিউরাল মেশিন ট্রান্সলেটর। নিউরাল মেশিন পদ্ধতি হচ্ছে মানুষের ভাষা, কম্পিউটারকে শেখানোর পদ্ধতি।

জিমেইলফাই (Gmailify)

আপনার যদি একের অধিক জিমেইল একাউন্ট থেকে থাকে এবং বারবার ভিন্ন ভিন্ন একাউন্টে লগইন এবং লগআউট করাটা ঝামেলার এবং বিরক্তিকর মনে হয়, তাহলে ব্যবহার করতে পারেন জিমেইলিফাই। এই অসাধারণ সফটওয়্যারটি আপনার সকল ইমেইল এড্রেসকে একত্রিত করে একটি একাউন্টের ইনবক্সে অন্তর্ভুক্ত করে, যার ফলে আপনি একটি আইডি থেকেই অনেকগুলো জিমেইল একাউন্ট এক্সেস করতে পারবেন। গুগলের সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার মাইকেল কে সের জিমেইলের অফিসিয়াল ব্লগে জানান,

“এর আগে জিমেইল অ্যাপে অন্য মেইল সেবা পড়ার সুযোগ দেওয়া হয়। এক্ষেত্রে গ্রাহকদের কাছ থেকে অনেক ভালো প্রতিক্রিয়া পাই। জিমেইলের স্প্যাম ফিল্টারিংসহ অন্যান্য ফিচারগুলোর কারণে তারা জিমেইল ব্যবহারে আগ্রহী বেশি দেখায়।”

গুগল কিপ (Google Keep)

গুগল কিপ হচ্ছে তাদের জন্যে যারা প্রতিনিয়ত লিস্ট তৈরি করতে থাকেন। সফটওয়্যারটির মাধ্যমে আপনি অসাধারণ ডিজাইনের রঙিন লিস্ট তৈরি করতে পারবেন। চাইলে সেগুলোতে রিমাইন্ডার হিসেবে এলার্মও সেট করতে রাখতে পারবেন।গুগল কিপে যে ফিচারগুলো আছে তা হলো কালার কোডিং নোট, ছবি রাখা, লিস্ট তৈরি করা, জিওফেন্সিং, নোট শেয়ার করা ও রঙের মাধ্যমে খোঁজা।

গুগল ফন্টস (Google Fonts)

সাইটের ডিজাইনের পাশাপাশি, ওয়েব ফন্ট, সাইটের কনভার্সেশন রেট বাড়ায়। এ কারণে অনেকেই থিমের ডিফল্ট ফন্টের পরিবর্তে কাস্টম ফন্ট ব্যবহার করেন। গুগল ফন্ট ওয়েব ডিজাইনার এবং ওয়েব ডেভেলপারদের জন্যে ফন্টের এক বিশাল সংরক্ষণাগার তৈরি করে রেখেছে। আপনি চাইলে যেকোনো রঙের, ডিজাইনের ও আকার-আকৃতির ফন্ট এই সফটওয়্যারে পাবেন।

প্যানোরামিয়ো (Panoramio)

প্যানোরামিয়ো হচ্ছে গুগলের একটি সামাজিক যোগাযোগের সফটওয়্যার, যার মাধ্যমে আপনি আপনার বন্ধুদের সাথে বিভিন্ন ছবি এবং ভিডিও আদানপ্রদান করতে পারবেন। এই সফটওয়্যারের মাধ্যমে আপনি বিভিন্ন ধরনের কপিরাইটেড ছবি সরাসরি ক্রয় করতে পারবেন।

গুগল সাউন্ড সার্চ (Google Sound Search)

কখনো কোথাও একটা গান শুনেছেন কিন্তু এটার নাম জানেন না? গুগল সাউন্ড সার্চ সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করে, সেখানে সার্চ করলেই পেয়ে যাবেন আপনার কাঙ্ক্ষিত গানের নাম।

থিংক উইথ গুগল (Think With Google)

থিংক উইথ গুগল মূলত মার্কেটারদের জন্যে তৈরী করা হয়েছে। এই সফটওয়্যারটির মাধ্যমে মার্কেটাররা, মার্কেটিং ট্রেন্ড এবং ক্রেতা ও বিভিন্ন কোম্পানির বাজারজাতকরণ তথ্য সম্পর্কে ধারনা পাবেন। গুগল জানায়,

“একজন ব্যবহারকারী তার একটি ওয়েবসাইট পরিদর্শনের জন্য তিন সেকেন্ড সময় নেন। এর ভিতর ওয়েবসাইটটি লোড না হলে বেশিরভাগ ব্যবহারকারী সাইটটি থেকে চলে যান। তাই একটি ওয়েবসাইটের ভিজিটর বাড়ার পরিমান নির্ভর করে, ওই সাইটটি কত টা দ্রুতগতিতে কাজ করতে পারে। এই টুলসের মাধ্যমে ওয়েবসাইটগুলোতে অনেক ভিজিটর বাড়বে এমনটাই আশা করছি আমরা।”

গুগল স্ক্রিন সার্চ (Google Screen Search)

গুগল স্ক্রিন সার্চ সফটওয়্যারটি মূলত তাদের জন্যে তৈরী করা হয়েছে, যারা শিখতে পছন্দ করে। এই সফটওয়্যারটির মাধ্যমে আপনি স্ক্রিনে যা পড়ছেন, সেই কন্টেন্ট এর সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য পাবেন। মূলত সফটওয়্যারটি শিক্ষার্থী এবং গবেষকদের জন্যে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

গুগল আর্ট প্রজেক্ট (Google Art Project)

যারা প্রকৃতি এবং আর্ট পছন্দ করেন তাদের জন্যেই এই সফটওয়্যারটি। সফটওয়্যারে আপনি বিভিন্ন বিখ্যাত আর্টগুলো দেখতে পারবেন এবং সেগুলো সম্পর্কে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানতে পারবেন। গুগল আর্ট প্রজেক্ট ব্যবহার করে বিশ্বের বড় সব জাদুঘরের বিখ্যাত ছবিগুলোর হাই রেজ্যুলেশন ভার্সন পাওয়া সম্ভব।

গুগল স্কাই (Google Sky)

গুগল স্কাই মানচিত্রে নক্ষত্রপুঞ্জ, ছায়াপথ, গ্রহ এবং পৃথিবীর চাঁদ সহ মহাজাগতিক বস্তু দেখতে পারবেন। অর্থাৎ, এই সফটওয়্যারের মাধ্যমে আপনি মহাকাশের বাইরের বিষয়বস্তু দেখতে পারবেন। আপনার স্মার্টফোন থেকেই সরাসরি দেখতে পারবেন মিল্কি ওয়ে গ্যালাক্সি এবং জানতে পারবেন জ্যোতির্বিদ্যা সংক্রান্ত অনেক তথ্য।

বিল্ড উইথ ক্রোম (Build With Chrome)

এই সফটওয়্যারের মাধ্যমে আপনি যেকোনো স্থানে বসে লেগো গেম খেলতে পারবেন। গেমটি প্রাপ্তবয়স্কদের জন্যও উপযুক্ত।

বিশেষ দ্রষ্টব্য, একজন ডিজিটাল মার্কেটারের দিক থেকে চিন্তা করলে উপরের প্রত্যেকটা অ্যাপ খুবই প্রয়োজনীয়! ধন্যবাদ!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top