অর্থ ব্যবস্থাপনার জন্যে ১০ টি প্রয়োজনীয় অ্যাপ্লিকেশন

অর্থনৈতিকভাবে খুবই সংকটে আছেন? আপনার বাজেট নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেন না? এই সমস্যাগুলোর সবচেয়ে ভালো সমাধান হচ্ছে, খরচ কমানো ও অর্থ জমানো। কিন্তু, এই কথা বলাটা সহজ। কাজে ফলানোটা খুবই কষ্টকর।

বর্তমান প্রযুক্তির যুগে, আমরা সবকিছুই ভিন্ন ভিন্ন অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে করে থাকি। একইভাবে অর্থ ব্যবস্থাপনার জন্যেও মানসম্পন্ন অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করা দরকার।

আজকে আমরা দেখবো এমন ১০ টি নির্ভরযোগ্য অর্থ ব্যবস্থাপনার অ্যাপ্লিকেশন, যেগুলো আপনাকে সাহায্য করবে সঠিকভাবে অর্থ সঞ্চয় করতে এবং খরচ কমাতে।

পার্সোনাল ক্যাপিটাল (Personal Capital)

আপনি কি কখনো আপনার মোট অর্থের পরিমাণ হিসেব করেছেন? হয়তো প্রত্যেক মাসেই করেন কিংবা কখনোই করেন নি। পার্সোনাল ক্যাপিটাল অ্যাপটি আপনার মোট অর্থের পরিমাণ হিসেব করতে এবং অবসর নেয়ার পূর্বে অর্থ সঞ্চয় করতে সাহায্য করবে। অ্যাপ্লিকেশনটির মূল বৈশিষ্ট্যগুলো হল,

  • অনেকগুলো ইনভেস্টমেন্ট একাউন্ট একসাথে ব্যবহার করতে পারবেন।
  • অনেকগুলো ক্রেডিট কার্ড থেকে একটি একাউন্টে অর্থ সঞ্চয় করতে পারবেন।
  • অবসর সম্পর্কিত বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানতে পারবেন।
  • বিভিন্ন অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে গোপন ফি সম্পর্কে জানতে পারবেন।

পার্সোনাল ক্যাপিটাল অ্যাপটির এন্ডয়েড এবং আইওএস ভার্সন এখান থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।

মিন্ট (Mint)

আপনি যদি এমন একটি অ্যাপ চান যেটি আপনার সকল ধরনের বিল এবং ব্যালেন্স এক জায়গায় থেকে ট্র্যাক করবে তাহলে আপনি মিন্ট ইন্সটল করতে পারেন। অ্যাপ্লিকেশনটির মূল  বৈশিষ্ট্যগুলো হচ্ছে,

  • একসাথে সকল ধরনের বিল এবং ব্যালেন্স ট্র্যাক করতে পারবেন।
  • কোথায় সর্বনিম্ন কত টাকা ইনভেস্ট করা উচিত সেটা জানতে পারবেন।
  • অবসর সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য জানতে পারবেন।
  • বিভিন্ন শ্রেণীতে ভাগ করে ইনভেস্টমেন্ট প্ল্যান করতে পারবেন।

মিন্ট অ্যাপটির এন্ড্রয়েড এবং আইওএস ভার্সন এখান থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।

ওয়াইএনএবি (YNAB – You Need A Budget)

প্রত্যেকেরই বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাজেটের দরকার পড়ে। ওয়াইএনএবি হচ্ছে এমন একটি অ্যাপ, যেটা ব্যবহার করার পর আপনি বাজেট সংক্রান্ত যেকোনো সমস্যার সমাধান পেয়ে যাবেন। অ্যাপ্লিকেশনটির মূল  বৈশিষ্ট্যগুলো হল,

  • আপনার প্রতিটি ব্যাংক একাউন্ট এক জায়গা থেকে সিনক্রোনাইজ করতে পারবেন।
  • বিভিন্ন চার্ট ও নোটিফিকেশনের মাধ্যমে ঋণ সংক্রান্ত তথ্য জানতে পারবেন।
  • প্রতিদিনের সঞ্চয়ের লক্ষ্য নির্ধারণ করার মাধ্যমে আরো বেশি অর্থ সঞ্চয় করতে পারবেন।

অ্যাপ্লিকেশনটির এন্ড্রয়েড ও আইওএস ভার্সন এখান থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।

ওয়েলথফ্রন্ট (Wealthfront)

আমরা প্রায়ই বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করতে গিয়ে ঝামেলা মনে করে সরে আসি। কিংবা নিজের ব্যবসাতেই বিনিয়োগ করতে চাই না। তার কারণ, বিনিয়োগ করাকে আমরা ঝামেলা মনে করি। ওয়েলথফ্রন্ট অ্যাপের মাধ্যমে আপনি বিনিয়োগসংক্রান্ত সকল সমস্যার সমাধান পেয়ে যাবেন। অ্যাপ্লিকেশনটির মূল  বৈশিষ্ট্যগুলো হচ্ছে,

  • বিভিন্ন ধরনের ইনভেস্টমেন্ট একাউন্ট খোলার পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে পারবেন।
  • বিনিয়োগকারি হিসেবে আপনার পোর্টফোলিও তৈরী করতে পারবেন।
  • কর এবং ঋণ সম্পর্কিত তথ্য জানতে পারবেন।

অ্যাপ্লিকেশনটির এন্ড্রয়েড ও আইওএস ভার্সন ডাউনলোড করতে পারবেন সম্পূর্ণ বিনামূল্যে।

ক্ল্যারিটি মানি (Clarity Money)

আপনার বাজেটের মধ্যে থেকে কীভাবে অর্থ সঞ্চয় করতে হয় তা আপনাকে ক্ল্যারিটি মানি শেখাবে। ক্ল্যারিটি মানি অ্যাপের মাধ্যমে আপনার অর্থনৈতিক অবস্থাকে পরবর্তী ধাপে নিয়ে যেতে পারবেন। অ্যাপ্লিকেশনটির মূল  বৈশিষ্ট্যগুলো হল,

  • যেকোনো সাইটের কিংবা অ্যাপের সাবস্ক্রিপশন এক ক্লিকেই ক্যান্সেল করে দিতে পারবেন।
  • সহজেই যেকোনো ব্যাংক একাউন্টের সাথে সিনক্রোনাইজ করতে পারবেন।
  • বিভিন্ন ব্যাংক একাউন্টের মধ্যে ঝামেলা ছাড়াই অর্থ হস্তান্তর করতে পারবেন।

ক্ল্যারিটি মানি এর আইওএস এবং এন্ড্রয়েড ভার্সন এখান থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।

অ্যাকর্নস (Acorns)

আপনি বিভিন্ন কোম্পানিতে বিনিয়োগ করতে চান, কিন্তু ঝুঁকির ভয়ে বিনিয়োগ করতে পারেন না। আপনার এই সমস্যার সমাধান করবে অ্যাকর্নস। অ্যাপ্লিকেশনটি থেকে আপনি বিভিন্ন কোম্পানিতে ঝুঁকি ছাড়াই সর্বনিম্ন ৫ ডলার থেকে শুরু করে বিনিয়োগ করার উপায় জানতে পারবেন। এই অ্যাপ্লিকেশনটির মূল  বৈশিষ্ট্যগুলো,

  • স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে ইনভেস্ট করতে পারবেন।
  • ইনভেস্টর হিসেবে আপনার পোর্টফোলিও তৈরি করতে পারবেন।
  • প্রত্যেক মাসে কিস্তিতে সর্বনিম্ন ১ থেকে ১২ ডলার পর্যন্ত বিনিয়োগ করতে পারবেন।

অ্যাকর্নসের এন্ড্রয়েড ও আইওএস ভার্সন ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারবেন।

অ্যালবার্ট (Albert)

আপনি কি প্রত্যেক মাসেই কিছু অতিরিক্ত অর্থ সঞ্চয় করতে চান? তাহলে অ্যালবার্ট আপনাকে সাহায্য করতে পারে। অ্যাপ্লিকেশনটি থেকে আপনি জানতে পারবেন কীভাবে প্রত্যেক মাসে কিছু অতিরিক্ত অর্থ সঞ্চয় করা যায়। অ্যালবার্ট এর মূল  বৈশিষ্ট্যগুলো,

  • প্রতিদিন অতিরিক্ত খরচ এবং গোপন ফি সম্পর্কে নোটিফিকেশন পাবেন।
  • আপনার আয় ও ব্যয় হিসাব করে একটি স্বয়ংক্রিয় বাজেট তৈরি করতে পারবেন।
  • অর্থনৈতিক লক্ষ্য পূরণ এবং ঋণ সম্পর্কিত নানা তথ্য সম্পর্কে জানতে পারবেন।

অ্যাপ্লিকেশনটি শুধুমাত্র আইওএস ব্যবহারকারীদের জন্যই তৈরি করা হয়েছে। অ্যাপটির আইওএস ভার্সনটি ডাউনলোড করতে পারবেন এখান থেকে

প্রিজম (Prism)

আপনি কি মাঝেমধ্যেই বিল প্রদান করতে ভুলে যান? প্রিজম অ্যাপ্লিকেশনটি আপনাকে আপনার বিল প্রদানের কথা মনে করিয়ে দেবে এবং আপনার ব্যাংক একাউন্টগুলোর সাথে সংযুক্ত হয়ে স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে বিল প্রদান করে দিবে। অ্যাপ্লিকেশনটির মূল  বৈশিষ্ট্যগুলো হল,

  • আপনার সকল ব্যাংক একাউন্ট একসাথে এক জায়গা থেকে দেখতে পারবেন।
  • স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে বিল প্রদান করতে পারবেন।
  • আপনাকে প্রত্যেক মাস শেষে বিল প্রদানের জন্য রিমাইন্ডার দেয়া হবে।

অ্যাপ্লিকেশনটি আপনি এন্ড্রয়েড, আইওএস ও উইন্ডোজ ভার্সনের জন্যে ডাউনলোড করতে পারবেন এখান থেকে

এমভেলপস (Mvelopes)

উনবিংশ শতাব্দীতে অনেক মানুষ চিঠির খামে টাকা জমাতো। আর সেই আইডিয়া থেকেই তৈরী করা হয়েছে এনভেলপের এর মতোই এমভেলপস। প্রত্যেক মাসে আপনার ব্যাংক একাউন্ট থেকে কিছু অর্থ এখানে সঞ্চয় করতে পারবেন। অ্যাপ্লিকেশনটির মূল  বৈশিষ্ট্যগুলো হচ্ছে,

  • অসংখ্য ব্যাংক একাউন্ট যুক্ত করতে পারবেন।
  • স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে বাজেট তৈরি করতে পারবেন।
  • মাসিক সর্বনিম্ন ৪ ডলার থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৪০ ডলার পর্যন্ত সঞ্চয় করতে পারবেন।

অ্যাপ্লিকেশনটি দুটো ভার্সনে তৈরি করা হয়েছে, আইওএস এবং এন্ড্রয়েড

ওয়ালাবাই (Wallaby)

মাঝেমধ্যে আমরা বিভিন্ন ক্রেডিট কার্ডে ছাড় এবং অফার পেয়ে থাকি। কিন্তু বিভিন্ন সমস্যার কারণে সেগুলো সম্পর্কে জানা হয়ে ওঠে না। ওয়ালাবাই আপনাকে এখন থেকে জানিয়ে দেবে আপনার ইন্টারেস্ট রেটসহ বিভিন্ন ছাড় এবং অফার সম্পর্কে। অ্যাপটির মূল  বৈশিষ্ট্যগুলো হল,

  • প্রতিটি ট্রানজেকশনের পর আপনাকে বিভিন্ন শ্রেণীভেদে সবচেয়ে ভালো ব্যাংক এবং ক্রেডিট কার্ড সম্পর্কে জানানো হবে।
  • অনেক ধরনের ক্রেডিট কার্ড যোগ করতে পারবেন।
  • অসাধারণ ডিজাইন এবং ইন্টারফেসে সম্পূর্ণ অ্যাপটি নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন।

ওয়ালাবাই এর আইওএস এবং এন্ড্রয়েড ভার্সন ডাউনলোড করতে পারবেন এখান থেকে

ভবিষ্যৎ সুন্দর করার জন্য অর্থ সঞ্চয় করাটা খুবই জরুরি। যাতে ভবিষ্যতে কোনো কারণে অর্থের সমস্যা হলে, সঞ্চয় করা সেই অর্থ দিয়ে অসুবিধা দূর করা যায়।

আর আপনার কাছে এখন এই কাজ সম্পন্ন করার জন্যে নির্ভরযোগ্য কিছু অ্যাপ্লিকেশনও আছে। তাহলে আর দেরি নয়, প্রয়োজনীয় অর্থ সঞ্চয় করে ভবিষ্যৎ নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top